সংবাদ ও মফস্বল সাংবাদিকতা

114

আব্দুল মুকিত::
সংবাদ ও সাংবাদিকতা বিষয়ে লিখতে গেলে যে তথ্য নির্ভর লেখা প্রয়োজন তা আমার এই লেখায় নেই। আমার অনেক দিনের পালিত স্বপ্ন এবং কিছু দিন থেকে মফস্বল সাংবাদিকতার কিছু কথা শেয়ার করার উদ্দেশ্যে আজকের এ লেখা।

ডিজিটাল বাংলাদেশের মানুষ হয়েও বিভিন্ন ক্ষেত্রে গ্রামের মানুষ হিসেবে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। জকিগঞ্জের কথাই যদি বলি অনেক অনলাইন পত্রিকা জকিগঞ্জ থেকে দৈনিক নিউজ পাবলিশ করে যাচ্ছে।
দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন অনলাইন পত্রিকার সংবাদকর্মীরা। তরুণদের কাছে অনলাইন নিউজ পোর্টাল আগ্রহের বিষয়, কিন্তু যারা বয়সে প্রবীণ তাদের কাছে অনেক ক্ষেত্রে অনলাইন নিউজ পোর্টাল অনেকটা চুলকানীর কারণ হয়ে দাঁড়ায় যা আমি আমার সামান্য দিনের সংবাদ সংগ্রহের কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি।

ডিজিটাল বাংলাদেশ আইসিটির যখন চরম শিখরে পৌছাতে দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। দেশ তথ্য-প্রযুক্তি খাতে বিশাল বরাদ্ধ দিচ্ছে। তরুণ প্রজন্ম তা বাস্তবায়নে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তখন কিছু অসাধু ব্যক্তি- প্রতিষ্টান এর অপব্যবহার করছে যা আমাদেরও চোখে পড়ে ।

এর দায় কি সবাই নিতে হবে?
যদি সবাইকেই নিতে হয় তাহলে এ খাতে সরকারের এতো বরাদ্ধ কেন?
আসুন সবাই মিলে তথ্য-প্রযুক্তির অপব্যবহারকারী অসাধু ব্যক্তি -প্রতিষ্টানের বিরুদ্বে সোচ্চার হই।
তরুণদের কাজে আগ্রহের যোগান দেই, তাতেই আগামীর বাংলাদেশ আরো সুন্দর হবে।
প্রিন্ট পত্রিকার সাংবাদিক ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল এর সাংবাদিকদের মধ্যেও রয়েছে একধরনের দূরত্ব যা ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ভালো সংবাদ নয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশ হওয়ায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও অনলাইন টিভি নামে ফেইসবুক ও ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।
এখন তাদের উপেক্ষিত রাখার সময় নয়।দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই যারা দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছে তাদের কে উৎসাহ দেওয়া এগিয়ে যেতে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া সময়ের দাবি।

সাংবাদিকদের একত্রিত প্লাটফরম প্রেস ক্লাব। প্রেস ক্লাবে নতুনদের নিয়ে কোন আগ্রহ পরিলক্ষিত হয় না।যা আগামীর জন্য ভালো সংবাদ নয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশ কে এগিয়ে নিয়ে যেতে নবীন-প্রবীণ সমন্য়য়ে কাজ করতে হবে। প্রবীণ সাংবাদিকগন যদি নবীনদের পাশে রাখেন এতে করে প্রবীণদের কাছথেকে নবীন রা অনেক কিছু শিখতে পারবে। আর যদি প্রবীণ সাংবাদিকগন নবীন দের পাত্তা না দিয়ে একলা চল রে নীতিতে চলেন। এতে অসুন্দর যা হবে তা জকিগঞ্জের সাংবাদিকদের লজ্জারই কারণ হয়ে দাঁড়াবে। নবীন দের পাশে রাখুন, খুঁটিনাটি বিষয়ে পরামর্শ দিন তাদের কে প্রেস ক্লাবের মাধ্যমে একটা নিয়ম নীতির ভিতরে কাজ চালিয়ে যেতে বলুন।জকিগঞ্জ প্রেস ক্লাব আরো সমৃদ্ধ হবে। জকিগঞ্জ প্রেস ক্লাব এর শুনাম আরো বৃদ্ধি পাবে।
আমি বিশেষ করে লেখক ও সাংবাদিকদের কে ভালবাসি মন থেকে। সাংবাদিকতা ও সেই ভালবাসা থেকে। কাজ ও চালিয়ে যাচ্ছি ইনশাআল্লাহ।

প্রবীণ সাংবাদিকদের আন্তরিক ভালবাসায় আমি আরো এগিয়ে যেতে চাই।
(চলবে)

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক,
জকিগঞ্জ ভিউ টোয়েন্টি ফোর ডটকম ও
ত্রৈমাসিক সন্ধানী।