জামিয়া ইসলামিয়া দারুসসুন্নাহ মোহাম্মাদিয়া লামারগ্রাম- এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

252

পূর্ণনামঃ (বাংলায়) জামিয়া ইসলামিয়া দারুস্সুন্নাহ মুহাম্মাদিয়া লামারগ্রাম জকিগঞ্জ, সিলেট, বাংলাদেশ।

(ইংরেজীতে) Jamia Islamia Darussunnah Muhammadia Lamargram, Zakigonj,Sylhet.

প্রতিষ্ঠাকাল: ০৫ ই শাওয়াল ১৩৯৯ হিজরী, মুতাবেক ২৭ আগষ্ট ১৯৭৯ ঈসায়ী, ১২ ভাদ্র ১৩৮৬ বাংলা।

প্রতিষ্ঠাতা: কুতবুল ইর্শাদ, সুলতানুল আরিফিন হযরতুল আল্লাম, মাওলানা মুহাম্মদ আলী (রাহ.)

প্রতিষ্ঠাকালীন মুহতামীম: কুতবুল ইর্শাদ, সুলতানুল আরিফিন হযরতুল আল্লাম, মাওলানা মুহাম্মদ আলী (রাহ.)

বর্তমান মুহতামীম: হযরত আল্লামা, হাফিয মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল গফ্ফার পীর সাহেব রায়পুরী (দা. বা.)

অবস্থান: সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলাধীন লামারগ্রামস্থ সাহেব বাড়ির সন্নিকটে অবস্থিত।

ই-মেইল: jid.muhammadia1386@gmail.com

ওয়েব: www.jamialamargram.com

জামিয়া প্রতিষ্ঠা: উলুমে নবুওয়াতের তালিম-তারবিয়্যাত তথা শিক্ষা দিক্ষার বাস্তবায়ন, আদর্শ জাতি গঠন, এবং ওলী তৈরীর কারখানা হিসেবে কেবল মহান রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে ২৭ আগষ্ট ১৯৭৯ ঈসায়ী তে ভারতের মুজাহিরুল উলুম সাহারানপুরের কৃতি সন্তান ও আল্লামা খলিল আহমদ সাহারানপুরীর (রহ.) পরশে ধন্য কুতবুল ইর্শাদ আল্লামা মুহাম্মদ আলী রায়পুরী (রাহ.) তার জীবন সায়াহ্নে ধন্য তারই দীর্ঘ জীবনের সাধনা ও কুরবানীর ফসল এক জামাত ওলামায়ে কেরাম ও বুযুর্গানে দ্বীনকে সাথে নিয়ে নিজ বাড়ির পার্শ্বে ১৫ কেদার জমির উপর প্রতিষ্টা করেন জামিয়া লামারগ্রাম। যা ক্রমান্নয়ে একটি প্রশিদ্ধ গ্রহণযোগ্য ও ইলমে দ্বীনের পতাকাবাহী এক বিশাল বিদ্যাপীট হিসাবে খ্যাতির্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

মূল শাখা: জামিয়া প্রাথমিক স্তর থেকে দাওরায়ে হাদীস (তাকমীল) তথা টাইটেল ক্লাস।

হিফজ শাখা: মাদরাসার ভবনের পূর্বপাশে রয়েছে হিফজ শাখা।

শাখা প্রতিষ্ঠান: ২০১২ সাল হতে জামিয়ার দক্ষিণ পাশে জামেয়া আব্দুল জব্বার বানাত মাদরাসা নামে  আলাদাভাবে ছাত্রী চলছে ছাত্রী শাখার পাঠদান।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য: কুতবুল ইর্শাদ আল্লামা রায়পুরী (রাহ.) এর প্রতিষ্টিত এ জামেয়ার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল:

১। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টির লক্ষ্যে মুসলিম সন্তানদের প্রকৃত মুসলমান হিসাবে গড়ে তোলতে দ্বীনি ইলম সমুহ শিক্ষা প্রদান এবং মুসলিম জনগোষ্টির মধ্যে ইসলামি চেতনার প্রচার-প্রসার।
২। ছোট-বড় ধর্মীয় পুস্তক রচনা ও প্রয়োজনানুসারে মাসিক/সাময়ীক ম্যাগাজিন প্রকাশ।
৩। বিশ্বের আনাচে-কানাচে ইসলামের সাস্বত বাণী পৌঁছে দেয়া।
৪। মুসলিম সমাজে আপতিত সমস্যাবলীর ক্বোরআন-সুন্নাহ ভিত্তিক সমাধান প্রদান।
৫। যুগ চাহিদার আলোকে জামেয়ায় অধ্যয়নকারী ছাত্রদের আরবী, বাংলা, উর্দু, ফার্সি ও ইংরেজী ভাষায় বাক্যালাপ ও লেখনে পারদর্শী কওে তোলা।
৬। সর্ব সাধারণের দোর গোড়ায় দ্বীনের দাওয়াত পৌছে দেয়া এবং ক্বোরআন-সুন্নাহর আলোকে জঠিল-কঠিন মাসআলা সমুহের সমাধান প্রদান।
৭। ধর্মীয় ও জাগতীক গুরুত্বপূর্ণ কিতাবাদী সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করা যাতে অনুসন্ধানী ইলম পিপাসু ছাত্র ও শিক্ষকগন উপকৃত হতে পারেন।
৮। ইসলাম ও মুসলিম মিল্লাতের হেফাযতকল্পে সিসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় বিদ্বেষী মহলের মোকাবেলায় রুখে দাড়ানো।

জামিয়ার ক্রমবিকাশ: দ্বীনের এ প্রতিষ্টনটি সুচনাতে প্রাথমিক স্তরে ছিল। এ প্রতিষ্টানটি তার প্রাথমিক স্তর থেকে উন্নতি সাধন করার পূর্বেই জামিয়ার প্রতিষ্টাতা কুতবুল ইর্শাদ আল্লামা রায়পুরী (রাহ.) আল্ল্হার ডাকে সাড়া দিয়ে ইহকাল ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে এ জামেয়ার কান্ডারী ধরেন দারুল উলুম দেওবন্দেও কৃতি সন্তান আল্লামা ফখরুদ্দীন আহমদ মুরাদাবাদী (রাহ.) এর পরশে ধন্য কুতবুল আকতাব সুলতানুল আরিফীন, হযরতুল আল্লাম মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল জব্বার রায়পুরী (রাহ.) যার অক্লান্ত পরিশ্রম ও ত্যাগের ফসলে এ পর্যন্ত উন্নতি সাধিত হয়। মহান রাব্বুল আলামীন এ জামিয়ার দ্বীনি খেদমতটুকু কবুল করুন- আমীন

সূত্র: মাদারাসার পেইজ