পৌর এলাকায় ঝড়ে পোল্ট্রি খামারসহ বসতবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

11

জকিগঞ্জ ভিউঃ জকিগঞ্জে মৌসুমের প্রথম ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রায় পনেরো মিনিটের এই ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে পৌর এলাকার অন্তত ত্রিশটি কাঁচা ও টিনশেড ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রচন্ড ঝড়ে পৌরসভার বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপড়ে পড়ে বিদ্যুতের লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২ এপ্রিল  বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে হঠাৎ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ঝড় ও শিলাবৃষ্টি শুরু হয়। কিছু বুুঝে ওঠার আগেই উপজেলার বেশ কিছু কাঁচা ঘরবাড়ি, অসংখ্য গাছপালা লণ্ডভণ্ড হয়।

ঝড়ের সাথে প্রচুর শিলাবৃষ্টিতে উপজেলার ইরি-বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ফসলের ক্ষয়ক্ষতিতে কৃষকরা শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন । বিশেষ করে শাখরপুর এলাকার মাহি পোল্ট্রি ফার্ম ব্যাপক ক্ষতির শিকার হয়েছে। ঝড়ে টিনশেড খামার ঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়ে যায়।
ফার্মের মালিক নজরুল হক মায়া জানান, প্রচণ্ড ঘড় ও বৃষ্টিতে খামারের এক হাজার সাত “শত মোরগ ছানার মধ্যে অধিকাংশ মারা গেছে। জীবিত মোরগ ছানাগুলোর অবস্থা অবনতির দিকে। সম্প্রতি আড়াই লাখ টাকার বিনিয়োগ করেছি। এখন সব কিছুই শেষ হয়ে গেল।”
ঝড়ের পর পর মোরগ ছানাগুলো স্থানান্তর করা হয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকায় কাকভেজা ছানাগুলোর পরিচর্যা ব্যাহত হচ্ছে।

ঝড়ের পর পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা শেওলা – জকিগঞ্জ রাস্তা থেকে বিধ্বস্ত গাছ অপসারণ করেন।  এদিকে বিদ্যুৎ লাইনের ওপর গাছ পড়ে কয়েক জায়গায় লাইন ছিড়ে গেছে। কোথাও লাইনের ওপর গাছের ডাল ঝুলন্ত রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারাও গাছ কেটে বিদ্যুৎ লাইন মুক্ত করছেন। বসনপুর গ্রামের চুনু মিয়া ও আব্দুল কালামের বাড়ির সংযোগ লাইন ছিড়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ঝড়ের পর পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডের শাখরপুর, বসনপুরসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।

সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জকিগঞ্জ জোনাল অফিস সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যুৎ লাইন চালু করতে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।