ফুলতলীতে দালাইলুল খায়রাত শরীফের সনদ বিতরণী মাহফিল অনুষ্ঠিত

67

জকিগঞ্জ ভিউঃ কুরআন তিলাওয়াতের সাথে দরূদ শরীফ পড়ার একটি গভীর সম্পর্ক রয়েছে

-আল্লামা ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী

সিলেটের জকিগঞ্জে ফুলতলী ছাহেব বাড়িতে ২২ ফেব্রুয়ারি, সোমবার অনুষ্ঠিত হলো দুরুদ শরীফের মকবুল ওযীফা দালাইলুল খায়রাতের সনদ বিতরণী মাহফিল। মুরশিদে বরহক হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী বড় ছাহেব কিবলাহ ফুলতলী’র নিকট থেকে সনদ গ্রহণের জন্য প্রায় তিন হাজারের মতো আলিম-উলামা ও বেরাদরানে তরীকতের পদচারণায় মুখরিত হয় ফুলতলী। সকাল ৯ টা থেকে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শুরু হয়। ১১ টা থেকে শুরু হয় মাহফিল। এতে সনগ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে নসিহতমূলক বক্তব্য প্রদানকালে হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, কুরআন তিলাওয়াতের সাথে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপর দরূদ পড়ার একটি গভীর সম্পর্ক রয়েছে। এর দ্বারা ইশক ও মহব্বত পয়দা হয়। বিশ্ববিখ্যাত কারী আব্দুল বাছিত (র.) হারাম শরীফে রিয়াদুল জান্নায় তিলাওয়াত করতেন। তিলাওয়াতেরে পর দালাইলুল খায়রাত পড়ার গুরুত্ব সম্পর্কে একটি কবিতাও আবৃত্তি করতেন। তিনি বলেন, দালাইলুল খায়রাত শরীফকে মুহাদ্দিসীনে কেরাম খুবই গুরুত্ব দিতেন। হযরত আল্লামা মুফতী আমীমুল ইহসান (র.) দালাইলুল খায়রাত তিলাওয়াতের কথা বলতেন, গুরুত্ব দিতেন। হযরত ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) অসুস্থ অবস্থায়, সফরে বা বাড়িতে থাকলেও দালাইলুল খায়রাত তিলাওয়াত করতেন। দালাইলুল খায়রাতের লেখক ইমাম জাযূলী (র.) একজন মকবূল ওলী ছিলেন। তিনি ফজরের নামাযে সিজদা অবস্থায় ইন্তিকাল করেন। হযরত শাহজালাল (র.)ও যুহরের নামাযরত অবস্থায় ইন্তিকাল করেন। নামাযরত বা সিজদারত অবস্থায় ইন্তিকাল করা মকবূলিয়াতের একটি প্রমাণ।

মাহফিলে অনলাইনে যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন রাসুলাল্লাহ (সা) এর ৩৯ তম বংশধর, মদীনা শরীফের প্রখ্যাত বুযুর্গ সায়্যিদ আল হাবীব আসিম আদী ইয়াহইয়া। তিনি বলেন, যারা দরূদ শরীফ পড়ে তাদের সাথে রওদায়ে আতহারের একটি সম্পর্ক থাকে। আমাদের সকল আমল রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে পেশ করা হয়। আপনাদের এই সকল আমলও পেশ করা হবে। এসবের ওসীলায় নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রহমতের নজর আপনাদের উপর থাকবে। দালাইলুল খায়রাত পাঠের মাধ্যমে এর লেখক যা লাভ করেছেন ইন শা আল্লাহ আপনারাও তা লাভ করবেন। আপনারা রজব মাসের সকল বরকত লাভ করুন। সামনে রহমতের মাস আসছে। রজব এবং শাবানে যারা প্রস্তুতি গ্রহণ করে তারাই রামাদানের পরিপূর্ণ বরকত লাভ করতে পারে, ঈদের দিনে আল্লাহর ঘোষিত ক্ষমা লাভ করতে পারে।

সনদ বিতরণ বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মাওলানা আহমদ হাসান চৌধুরী ফুলতলী’র স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে সূচিত ও মাওলানা নজমুল হুদা খানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত এ মাহফিলে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত শায়খুল হাদীস আল্লামা হবিবুর রহমান, বাদেদেওরাইল ফুলতলী কামিল মাদরাসার সাবেক অধ্যক্ষ, উস্তাযুল উলামা হযরত আল্লামা নজমুদ্দীন চৌধুরী, দৈনিক ইনকিলাবের নির্বাহী সম্পাদক মাওলানা কবি রূহুল আমীন খান, মুফতী মাওলানা গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী, বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী, ঢাকা দারুন্নাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আ. খ. ম আবূ বকর সিদ্দীক, মহাখালী দারুল উলুম হোসাইনিয়া কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল ড. মাওলানা নজরুল ইসলাম আল মারুফ মাদানী ও সৎপুর দারুল হাদীস কামিল মাদরাসার ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা ছালিক আহমদ।

এতে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা শিহাব উদ্দিন চৌধুরী ছাহেবজাদায়ে ফুলতলী, ইকড়ছই আলিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ছমির উদ্দিন, জকিগঞ্জ সিনিয়র মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা নূরুল ইসলাম, বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা ছরওয়ারে জাহান, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা এ.কে.এম মনোওর আলী, বাদেদেওরাইল ফুলতলী কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুর রহীম, রাখালগঞ্জ সিনিয়র মাদরাসার সাবেক প্রিন্সিপাল মাওলানা হবিবুর রহমান, আনজুমানে আল ইসলাহর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিন্সিপাল মাওলানা মঈনুল ইসলাম পারভেজ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা মাহমুদ হাসান চৌধুরী, জালালপুর জালালিয়া কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা জ.উ.ম আব্দুল মুনঈম, সৎপুর কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবূ জাফর মুহাম্মদ নুমান, স্কুল অব এক্সেলেন্স-এর প্রিন্সিপাল মাওলানা গুফরান আহমদ চৌধুরী, বুরাইয়া কামিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল মাওলানা সিরাজুল ইসলাম ফারুকী, ফেঞ্চুগঞ্জ মোহাম্মদিয়া কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ফরিদ উদ্দিন, ইছামতি কামিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল মাওলানা শিহাবুর রহমান চৌধুরী, সোবহানীঘাট হযরত শাহজালাল দারুচ্ছুন্নাহ ইয়াকুবিয়া কামিল মাদরাসার ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা আবূ ছালেহ মুহাম্মদ কুতবুল আলম, বিশ্বনাথ আলিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা নুমান আহমদ, মাওলানা কাজী আলাউদ্দিন আহমদ, মাওলানা জিল্লুর রহমান, তালামীযে ইসলামিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি আক্তার হোসাইন জাহেদ, সহ সভাপতি দুলাল আহমদ, মুহিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূনুর রহমান লেখন প্রমুখ।
সনদ বিতরণ মাহফিল উপলক্ষ্যে ‘শাওয়ারিকুল আনওয়ার’ নামে একটি স্মারকও প্রকাশিত হয়।