বাংলাদেশের সাফল্যে ঈর্ষায় পুড়ছে ভারত

5

জকিগঞ্জ ভিউঃ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাফল্যে হিংসায় ফুসছে ভারত। তারা মানতেই পারছে না অজি বধের গল্প। তাই তো ভারতীয় সংবাদমাধ্যম অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম দুটি টি-টোয়েন্টি জেতার পর বলেছিল অঘটন এবং ফের অঘটন। সিরিজ জয়ের পরেও তাদের সংবাদমাধ্যমের হেডলাইন ‘বাংলাদেশের চমক’। অবশ্য তাদের এমন খবরে বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমও দিয়েছে ধুয়ে।

দাম্ভিকতায় উড়তে থাকা অস্ট্রেলিয়াকে সাত আসমান থেকে মাটিতে নামিয়ে বাংলাদেশ কোমর ভেঙে দিয়েছে। বাংলার বাঘের থাবায় ক্যাঙ্গারুরা করছে ছটফট। বাংলাদেশের বিপক্ষে না খেলতে চাওয়ার অহংবোধের পতন। মাথা পেতে নিয়েছে ‘মাইটি অস্ট্রেলিয়া’।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াও যখন বাংলাদেশর পারফরম্যান্সে করছে প্রশংসা; তখন টাইগারদের একের পর এক সাফল্যে কেন জ্বলছে ভারত! তাদের যেন সহ্যই হচ্ছে না টাইগারদের অর্জন। এই যেমন অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হারানোর পর ভারতের সংবাদমাধ্যম বলল, বাংলাদেশের অঘটন। দ্বিতীয় জয়ের পর আবারও বলল, বাংলাদেশের নাকি ফের অঘটন।

এখানেই থামেনি তাদের জ্বলন। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচ হাতে রেখে স্বপ্নীল সিরিজ জয়ের পর কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার হেডলাইন চমক দেখিয়ে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ।

চমক! কিসের চমক। টাইগারদের পারফরম্যান্সে। না। অনেকটাই খোঁচা মেরে বলেছে আর লিখেছে। হয়তো তাদের লেখা খবর পড়ছে না কেউ। তাই এমন খবর ছেপেছে দেশটির সংবাদমাধ্যম।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে প্রথমবারের মতো দ্বিপাক্ষিক কোনো টি-টোয়েন্টি সিরিজ এটি। এর আগে দু’দল সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের চারটি ম্যাচ খেললেও সেগুলো ছিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। যার প্রত্যেকটিতেই হেরেছিল বাংলাদেশ। সব মিলিয়ে ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই অস্ট্রেলিয়াকে হারের স্বাদ দিল বাংলাদেশ। এর মধ্যে টেস্ট ও ওয়ানডেতে জয় একটি করে।

এই সিরিজের প্রথম ম্যাচে ২৩ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। শুরুতে ব্যাট করে সফরকারী দলকে ১৩২ রানের টার্গেট দিয়ে নাসুম আহমেদের ঘূর্ণিতে জয় পায় টাইগাররা। ১৯ রান দিয়ে একাই ৪ উইকেট তুলে নেন সিলেট থেকে বেড়ে ওঠা নাসুম। ব্যাট হাতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেছিলেন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ম্যাচসেরা হন নাসুম।

দ্বিতীয় ম্যাচে রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যরা জয় পায় ৫ উইকেটে। এবার অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ১২২ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে আফিফ হোসেন ও নুরুল হাসান সোহানের ব্যাটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। আফিফ করেন ৩৭ রান। সাকিব ও নুরুল হাসান করেন যথাক্রমে ২৬ ও ২২ রান।

আর তৃতীয় ম্যাচে ১০ রানের জয় পায় বাংলাদেশ। এই জয়ে ৫ ম্যাচ সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে নিশ্চিত করেছে স্বাগতিকরা। বাংলাদেশের দেওয়া ১২৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১১৭ রান সংগ্রহ করে অতিথিরা।